Breaking News :

মেসির মধ্যস্থতায় চীনের তৈরি টিকার চুক্তি

করোনা ভাইরাস ২০২০ সালের মার্চ মাসের দিকে পুরো বিশ্বে হানা দেয়। একে অপরকে কাঁদা ছুড়াছুড়ি করা হয়েছে অনেক বার। কখনও আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দৃঢ়তার সাথে সরাসরি বলেছেন চীন এই ভাইরাস পুরো বিশ্ব ব্যাপী ছড়িয়ে দিয়েছে নিজেদের স্বার্থে। কখনও বা চীন দাবি করেছে এই ভাইরাসটি ছড়িয়েছে আমেরিকা থেকে।

কিন্তু ২০২১ সালে এসেও এর কোন সত্যতা আজও কেউ বের করতে পারেনি। পুরো বিশ্ব বর্তমানে করোনার থাবায় বিপযস্থ। এর মধ্যে ব্রাজিলের অবস্থা খুবই নাজুক। প্রতিনিয়ত করোনার থাবায় মানুষের মৃত্যুর মিছিল যেন বেড়েই চলেছে।

কিছু দিনের মধ্যে শুরু হতে যাচ্ছে কোপা আমেরিকার ফুটবল খেলা। এবারই ১০৫ বছরের ইতিহাসে প্রথম আর্জেন্টিনা ও কলম্বিয়ায় হতে যাচ্ছে খেলা। আগামী ১১ জুন শুরু হয়ে ১০ জুলাই শেষ হওয়ার কথা আসরটি।

কিন্তু বাঁধ সেধেছে কোভিড১৯ (করোনা) ভাইরাসটি। ওই সময় দক্ষিণ আমেরিকান ফুটবলারদের জন্য করোনাভাইরাসের টিকা যেন সহজলভ্য হয়, সে লক্ষ্যে চীনের সিনোভ্যাকের কাছ থেকে ৫০ হাজার ডোজ টিকা পেতে চুক্তি করা হয়েছে। আর এই উচ্চাভিলাষী প্রকল্প বাস্তবায়নে সহযোগিতা করেছেন আর্জেন্টাইন তারকা লিওনেল মেসি।

যদিও চীনের তৈরি টিকা এখনও আর্জেন্টিনাতে অনুমতি পায়নি। কিন্তু কনমেবল জানিয়েছে, তারা আর্জেন্টাইন কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে বিশেষ এই পরিস্থিতির জন্য টিকা ব্যবহারের অনুমতি চাইতে সমঝোতা করছে।

অন্যদিকে দক্ষিণ আমেরিকার ফুটবল নিয়ন্ত্রক সংস্থা কনমেবলের এক কর্মকর্তা গঞ্জালো বেল্লোস টুইটারে নিশ্চিত করেছেন, ‘লিওনেল মেসি টিকা নিশ্চিত করতে তার স্বাক্ষরযুক্ত তিনটি সোয়েটার পাঠিয়েছে চীনের ওষুধ নির্মাতা ওই প্রতিষ্ঠানের কাছে এবং সিনোভ্যাকের পরিচালকরা মেসির প্রতি ভালোবাসা জানিয়েছেন ।’

মাঠে গড়ানোর আগে মূলত আর্জেন্টিনার প্রথম বিভাগের দলগুলোর খেলোয়াড়দের জন্যই টিকা দেওয়া হতে পারে। যাতে কোপার জন্য যে কেউ ডাক পেলে যেন সুস্থভাবে খেলার সুযোগ পেতে পারে।

এক নজরে দেখে নেওয়া যাক কোপা আমেরিকার ফিকচার/সুচিঃ

‘এ’ গ্রুপে স্বাগতিক আর্জেন্টিনার সঙ্গে আছে বলিভিয়া, উরুগুয়ে, প্যারাগুয়ে ও চিলি।

আগামী ১৩ জুন বুয়েন্স আইরেসে উদ্ভোধনী ম্যাচে মুখোমুখি হবে আর্জেন্টিনা ও চিলি।

‘বি’ গ্রুপে ব্রাজিলের সঙ্গে আছে ইকুয়েডর, ভেনেজুয়েলা, পেরু ও অপর স্বাগতিক দল কলম্বিয়া।

দুই গ্রুপের সেরা চার দল নিয়ে হবে কোয়ার্টার-ফাইনাল।

১৩ জুন আর্জেন্টিনা-চিলি, বলিভিয়া-প্যারাগুয়ে।
১৪ জুন ব্রাজিল-ভেনেজুয়েলা, কলম্বিয়া-ইকুয়েডর।
১৭ জুন চিলি-বলিভিয়া, আর্জেন্টিনা-উরুগুয়ে।
১৮ জুন কলম্বিয়া-ভেনেজুয়েলা, পেরু-ব্রাজিল।
২০ জুন উরুগুয়ে-চিলি, আর্জেন্টিনা-প্যারাগুয়ে।
২১ জুন ভেনেজুয়েলা-ইকুয়েডর, কলম্বিয়া-পেরু।
২৩ জুন বলিভিয়া-উরুগুয়ে, চিলি-প্যারাগুয়ে।
২৪ জুন ইকুয়েডর-পেরু, কলম্বিয়া-ব্রাজিল।
২৭ জুন আর্জেন্টিনা-বলিভিয়া, উরুগুয়ে-প্যারাগুয়ে।
২৮ জুন ইকুয়েডর-ব্রাজিল, ভেনেজুয়েলা-পেরু।

নক আউপ পর্ব
কোয়ার্টার-ফাইনাল: ১, জুলাই ২: নাম্বার ২ গ্রুপ এ বনাম নাম্বার ২ গ্রুপ বি
কোয়ার্টার-ফাইনাল: ২, জুলাই ২: নাম্বার ১ গ্রুপ এ বনাম নাম্বার ৪ গ্রুপ বি
কোয়ার্টার-ফাইনাল: ৩, জুলাই ৩: নাম্বার ২ গ্রুপ বি বনাম নাম্বার ৩ গ্রুপ এ
কোয়ার্টার-ফাইনাল: ৪, জুলাই ৩: নাম্বার ১ গ্রুপ বি বনাম নাম্বার ৪ গ্রুপ এ

সেমিফাইনাল ১: জুলাই ৫: কোয়ার্টার-ফাইনাল ১ জয়ী বনাম কোয়ার্টার-ফাইনালের ২ জয়ী
সেমিফাইনাল ২: জুলাই ৬: কোয়ার্টার-ফাইনাল ৩ জয়ী বনাম কোয়ার্টার-ফাইনালের ৪ জয়ী

তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচ: জুলাই ৯: সেমিফাইনালে হার ১ বনাম সেমিফাইনালে হার ২

ফাইনাল: জুলাই ১০: সেমিফাইনালে জয়ী ১ বনাম সেমিফাইনালে জয়ী ২

বাংলা ক্যালেন্ডার