Breaking News :

পিচাশের কবলে ২৬দিনের শিশু কন্যা

স্টাফ রির্পোটারঃ খবরের টাইটেলটি পড়ে অনেকেই ভাবতে পারেন। এই ২০২০ সালে পিচাশ আসলো কোথা থেকে। রুপ কথার সেই বড় বড় দৈত্যদের কথাও মনে পরে যায়। টাইটেলটি এভাবে শুরু না করলেও হতো। কিন্তু মানুষের চরিত্র যখন একটি রুপ কথার দৈত্যের চরিত্রের সাথে মিলে যায় তখন টাইটেলের এমন নাম দেওয়া ছাড়া আর কোন উপায়ই থাকে না।

এবার আসি মুল খবরে, যেখানে একটি সন্তানের নিরাপদ স্থান বাবার কোল। সেই কোল থেকেই আছাড় মেরে ২৬ দিনের কন্যা সন্তানকে হত্যা করেছেন একজন বাবা নামক হিংস্র পিশাচ। ঘটনাটি ঘটেছে নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জের ভুলতা ইউনিয়নের পাড়াগাঁও দক্ষিণপাড়া এলাকায়।

খবর নিয়ে জানা যায়, গত শনিবার ভোরের দিকে এই হত্যাকান্ডটি ঘটানো হয়। ভোরের দিকে শিশু কন্যা হটাৎ কান্না শুরু করলে শিশুটির বাবা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন এক পর্যায়ে শিশুটিকে তিনি কোলে নেন। কিন্তু কিছুক্ষনের মধ্যেই শিশুটিকে ঘরের মেঝেতে আছড়ে ফেলে দেন তিনি। ঘটনাস্থলেই শিশুটি মৃত্যুর কোলে ঢলে পরে। এর পর থেকেই তিনি পলাতক আছেন।

স্থানীয়রা পুলিশে খবর দিলে ঘটনাস্থলে দ্রুত তারা উপস্থিত হন। শিশুটির মরদেহকে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়নগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।

এ ব্যাপারে ভুলতা ফাঁড়ির ইনচার্জ জনাব আনিসুর রহমানের সাথে কথা হলে তিনি জানান, হত্যাকারী ঘাতককে গ্রেফতারের জন্য অভিযান চলছে। শিশুটির মা বাদী হয়ে থানায় মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

উল্লেখ্য, ভুলতা ইউনিয়নের পাড়াগাঁও দক্ষিণপাড়া এলাকার হারুন রশিদের মেয়ে খাদিজার সাথে ২বছর আগে পার্শ্ববর্তী মাছিমপুর এলাকার মৃত বাবুলের ছেলে কামালের সাথে পারিবারিকভাবে বিয়ে সম্পন্ন হয়। বিয়ের পরপরই কামাল শ্বশুর বাড়িতে থাকা শুরু করেন। এখানেই খাদিজা গর্ভবর্তী হন। প্রথম থেকেই কামালের ইচ্ছে ছিল পুত্র সন্তানের বাবা হওয়ার। কিন্তু স্ত্রী খাদিজার গর্ভে কন্যা সন্তান আসলে ‍প্রথম থেকেই কামাল এর বিরুধিতা করেন। গত ২৬ দিন আগে তাদের কন্যা সন্তান পৃথিবীর আলো দেখে। এতে কামাল আরোও ক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। স্ত্রী খাদিজার সাথে খারাপ আচরন শুরু করে। শিশু কন্যার বয়স ১০দিন হলে সে তাকে হত্যা করার চেষ্ঠা চালায়। কিন্তু তাতে সে ব্যার্থ্য হয়। ২৬ দিনের মাথায় তিনি আবার সুযোগটি পেয়ে যান। ভোরের দিকে শিশু কন্যা হটাৎ কান্না শুরু করলে শিশুটির বাবা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন এক পর্যায়ে শিশুটিকে তিনি কোলে নেন। কিন্তু কিছুক্ষনের মধ্যেই শিশুটিকে ঘরের মেঝেতে আছড়ে ফেলে দেন তিনি।

এদিকে পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তার সাথে কথা হলে তিনি জানান, ঘটনাটির পিছনে অন্যকোন কারন আছে কি না তা তারা খতিয়ে দেখবেন এবং যত দ্রুত সম্ভব ঘাতক পিতাকে তারা গ্রেফতার করতে সক্ষম হবে বলে আশ্বাস প্রদান করেন।

বাংলা ক্যালেন্ডার