Breaking News :

করোনা নিয়ে নতুন গবেষনা, উঠে এল নতুন তথ্য

করোনা নিয়ে এ পর্যন্ত কম গবেষনা হয়নি। একেক সময় একেক রির্পোট পাওয়া গিয়েছে বিভিন্ন গবেষনায়। কিন্তু এবার গবেষকরা জানিয়েছেন অন্য একটি তথ্য। আমরা এতদিন জানতাম হাঁচি, কাশি, নিঃশ্বাসের মাধ্যমে বেরোনো ড্রপলেটের মাধ্যমে ক্ষতিকারক করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে ছয় ফুট দূরত্ব পর্যন্ত।

কিন্তু সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা নতুন একটি গবেষণায় দাবি করেছেন, বিভিন্ন আবহাওয়ায়, ঠান্ডা গরমের তারতম্যে নভেল করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে প্রায় ২০ ফুট পর্যন্ত। এই তথ্য উঠে এসেছে ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণায়।

এই গবেষনার ফলে ৬ফুট দুরত্বের তত্বটি এখন ভুল প্রমানিত হওয়ার পথে। দুইজন মানুষের মাঝে ৬ফুট দূরত্ব এখন কোন কাজেই আসবেনা বলেই বিজ্ঞানীরা মনে করেন।

আগের গবেষণার ভিত্তিতে তাঁরা বলেছেন, হাঁচি-কাশি বা সাধারণ কথাবার্তার সময়েও প্রায় ৪০ হাজার রেসপিরেটরি ড্রপলেট বেরোয়। প্রাথমিক পর্যায়ে এই ড্রপলেটের গতি প্রতি সেকেন্ডে কয়েক মিটার থেকে শুরু করে প্রতি সেকেন্ডে কয়েক শো মিটার পর্যন্ত বাড়তে পারে। এই গবেষণার রিপোর্ট প্রি-প্রিন্ট হিসেবে প্রকাশিত হয়েছে medrXiv-এ।

গবেশনা করতে গিয়ে বিজ্ঞানীরা একটি কমপ্রিহেনসিভ গাণিতিক মডেলের সাহায্য নিয়েছেন। এরই মাধ্যমে রেসপিরেটরি ড্রপলেটের ইভাপোরেশন, হিট ট্রান্সফার এবং প্রোজেক্টাইল মোশন খতিয়ে দেখা হয়েছে বিভিন্ন তাপমাত্রা, আর্দ্রতা এবং ভেন্টিলেশন পরিস্থিতিতে।

আর এর থেকেই দেখা গিয়েছে Covid-19 করোনা ভাইরাসের রেসপিরেটরি ড্রপলেটের মাধ্যমে ট্রান্সমিশন পাথওয়ে শর্ট-রেঞ্জ ড্রপলেট কনট্যাক্ট এবং লং-রেঞ্জ এরোসল এক্সপোজারে বিভক্ত।

বিজ্ঞানীরা তাদের গবেষনা পত্রে জানান, ‘বড় ড্রপলেট মাধ্যাকর্ষণ শক্তির জন্যে বেশি দূর পর্যন্ত যেতে পারে না, এবং বাতাসের উপরিস্তরেই থেকে যায়। অন্যদিকে ছোট ড্রপলেট দ্রুত বাষ্প হয়ে এরোসল পদার্থের রূপ নেয় এবং ভাইরাসকে বাতাসে ভাসমান রাখতে পারে কয়েক ঘন্টা পর্যন্ত। আমাদের মডেলের থেকে এই তথ্যই উঠে আসছে সেন্টার ফর ডিজিজ কনট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের নির্দিষ্ট ৬ ফুটের সামাজি দূরত্ব নিরাপদ নাও হতে পারে কিছু আবহাওয়ায়। ঠান্ডা এবং আর্দ্র আবহাওয়ায় ১৯.৭ ফুট পর্যন্ত ড্রপলেটের সাহায্যে ছড়াতে পারে নভেল করোনাভাইরাস।’

বাংলা ক্যালেন্ডার