Breaking News :

আধুনিক যুগে এসেও আইয়্যামে জাহিলিয়াত কেও হার মানাচ্ছে ‘চুরাল মুরিয়াল’ ঘটনা

‘চুরাল মুরিয়াল’ হচ্ছে শিশুবলির অপর এক নাম। দক্ষিণ ভারতের কেরালা রাজ্যের মেভেলিক্কারার ছেত্তিকুলাঙ্গারা মন্দিরে আড়াইশো বছরের ঐতিহ্য হিসেবে মানুষ বলি দেওয়ার এক ভয়ানক ধর্মীয় রীতি পালন করা হয়। যার নাম চুরাল মুরিয়াল।

ওই মন্দিরে মার্চ মাস নাগাদ অনুষ্ঠিত হয় কুম্বাভারানি উৎসব। প্রতিবারের মতো এ বছর ১১ মার্চ ছেত্তিকুলা‌ঙ্গারা মন্দিরের আরাধ্য বিগ্রহ ভদ্রকালীর উদ্দেশে আয়োজন করা হয় চুরাল মুরিয়াল। যদিও গত বছরই এই অমানবিক প্রথার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল কেরল হাইকোর্ট।

ভিডিওঃ টাকা দিয়ে বালক ক্রয় করা হচ্ছে।

ধনী পরিবারগুলো মার্চ মাসে কেরালার ‘কুম্বাভারানি উৎসবে’ ছেলে শিশুদেরকে বলি দিয়ে দেবতাকে এভাবে তুষ্ট করে। এইরীতি অনুযায়ী ১০ বছরের কম বয়সি বাচ্চা ছেলেদের বলি দেওযা হয় মন্দিরের ভগবানের কাছে। সোনার সুঁচে সুতা ঢুকিয়ে তা দিয়ে ক্ষত-বিক্ষত করা হয় তাদের দেহ। সূচ ফোঁটানোর ফলে তাদের শরীর থেকে বেরিয়ে আসা রক্ত উৎসর্গ করা হয় ভদ্রকালীর সামনে। এতে ‘দেবী’র আশীর্বাদ পাওয়া যায় বলে সেখানকার জনমানসে বিশ্বাস। সেই বিশ্বাসের বশবর্তী হয়ে এই অমানবিক প্রথা চালু রাখতে শিশু কেনাবেচার মতো গুরুতর অপরাধও চলে সারা কেরল জুড়ে।

যে পরিবার এই প্রথা মেনে পূজো দিচ্ছে তাদের ওপর ভগবান আশীর্বাদ বর্ষণ করেন। গরীব পরিবার থেকে সন্তান কিনে এনে তাকে স্নান করিয়ে পবিত্র করানোর পর তাকে মেয়েদের মতো মেকাপ করানো হয়, চকচকে রঙিন পোশাক পরিধান করানো হয় এবং গলায় পরানো হয় ফুলের মালা। যেন বিয়ে করতে যাচ্ছে কোনো হিন্দু কিশোর! আর এখানে আছে আরও একটি টুইস্ট। এই পূজো সাধারণত করে থাকে ধনী পরিবারগুলো। আর তারা এই রীতির জন্য নিজের বাড়ির ছেলেদের কখনোই এগিয়ে দেন না; প্রায় ৫০ হাজার থেকে ১ লক্ষ টাকায় এই কেনাবেচা চলে বলে অভিযোগ। একেবারে গরীব পরিবারগুলো থেকে তাদের শিশুপুত্রদের কিনে আনেন তারা। পূজো করার এই বর্বর রীতি তারা প্রাচীনকাল থেকেই বলবৎ রেখেছে।

শিশু নির্যাতন রোধে যখন সারা দেশ জুড়ে বিভিন্ন পদক্ষেপ করা হচ্ছে, সেখানে এই প্রথার বিরোধিতা হয়েছে কেরলেও। ২০১৬ সালে এই প্রথাকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে কেরল স্টেট কমিশন ফর প্রোটেকশন অব চাইল্ডস। এ নিয়ে মামলাও শুরু হয় উচ্চ আদালতে। সেই মামলায় কেরল হাইকোর্ট গত বছর ফেব্রুয়ারি মাসে এই প্রথাকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে। তারপরেও বন্ধ হয়নি শিশু অধিকার ভঙ্গকারী এই অমানবিক প্রথা।

বাংলা ক্যালেন্ডার