Breaking News :

অনলাইনে পেমেন্ট সংক্রান্ত কিছু টিপস

বর্তমান সময়ে ঘরে বসে বেশিরভাগ মানুষ বিভিন্ন পণ্য অর্ডার দিতে পছন্দ করেন। আর বেশিরভাগ পণ্য দেশীয় কোম্পানীর হওয়ার দরুন পেমেন্টগুলো বিকাশ, নগদ দিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু কোম্পানীটি যদি দেশের বাইরের হয় তখনই পেমেন্ট নিয়ে পরতে হয় সমস্যায়। এছাড়া ফেইসবুকে এ্যাড দিতে আপনাকে এড এর জন্য ফেইসবুক কর্তৃপক্ষকে পেমেন্ট দিতে হবে এমন নানান সমস্যায় পরতে হয় আপনাকে। আজ আপনাদেরকে জানাবো কিছু দেশীয় পেমেন্ট গেটওয়ের কথা যা দিয়ে আপনি আন্তর্জাতিক কোম্পানীগুলোর পেমেন্ট দিতে পারবেন খুব সহজেই।

  • Eastern Bank এর Aqua Prepaid Card। এটি আন্তর্জাতিক   মাস্টারকার্ড এবং এটি ডুয়েল কারেন্সি Prepaid Master Card, এর মাধ্যমে দেশে-বিদেশে অনলাইন কিংবা অফলাইনে যেকোনো পেমেন্ট খুব সহজেই আপনি করতে পারবেন।

এখন প্রশ্ন আসতে পারে, তাহলে কিভাবে এই মাস্টারকার্ডটি আমি পাব বা Eastern Bank এর Aqua Prepaid Master Card পেতে কি কি প্রয়োজন হবে?

  1. সদ্যতোলা আপনার ২কপি পার্সপোট সাইজের ছবি
  2. ন্যাশনাল আইডি কার্ড  এবং পাসপোর্টের ফটোকপি। (অরিজিনাল কপি সাথে নিতে হবে)
  3. কার্ড ফি ৫০০টাকা, ভ্যাট ৭৫টাকা (মোট- ৫৭৫টাকা) (২০১৯ ইং)
  4. ডলার এনডোর্সমেন্ট এর জন্য পাসপোর্ট (অরিজিনাল কপি অবশ্যই থাকতে হবে)

কিভাবে EBL Aqua MasterCard এর আবেদন করতে হয়?

আপনার নিকটস্থ Eastern Bank Limited এর যেকোন কোনো ব্র্যাঞ্চে গিয়ে কার্ড ডিভিশন এ যোগাযোগ করুন। দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিকে বলুন আপনি Eastern Bank এর Aqua Prepaid Master Card নিতে আগ্রহী। তিনি আপনাকে বেশ কয়েকটি ফর্ম দিবেন। সবগুলো ফর্ম সতর্কভাবে পূরন করুন। সাধারন ব্যাংক একাউন্ট খোলার সময় যে ধরনের ফর্ম পূরন করা হয় ঠিক একই ধরনের ফর্ম এখানে আপনাকে পূরন করতে হবে। যদি বুঝতে সমস্যা হয়ে থাকে তাহলে দায়িত্বরত অফিসারের কাছ থেকে সাহায্য নিতে পারেন।

দৃষ্টি আকর্ষণঃ ফর্মগুলো পূরন করার সময় খেয়াল করবেন “E-commerce Enrollment Form” নামের ফর্মটি আপনি পূরন করছেন কিনা। কারন আপনি যেহেতু এটা দিয়ে ইন্টারন্যাশনাল পেমেন্ট করবেন তাই E-commerce Enrollment Form টি পূরন করা আপনার জন্য বাধ্যতামূলক। এটা পূরন না করলে আপনি USD কারেন্সি তে পেমেন্ট করতে পারবেন না।

সব ডকুমেন্টস সাবমিট করার পর ভেরিফিকেশন এর জন্য ৭-১০ দিন সময় লাগবে (এখানে দিন বলতে কর্মদিবস বোঝানো হয়েছে) । ভেরিফিকেশন হয়ে গেলে ফর্মে দেয়া আপনার মোবাইল নাম্বারে একটি মেসেজ পাবেন। যদি ১০দিনের মধ্যে কোনো মেসেজ না পান তাহলে Eastern Bank Limited এর কাস্টমার কেয়ার ১৬২৩০ নাম্বারে ফোন দিয়ে আপডেট জানুন।

কিভাবে EBL Aqua Card এ ডলার রিচার্জ করবেন?
ডকুমেন্টস সব ভেরিফাই হয়ে গেলে পাসপোর্ট এবং কত টাকা/ডলার রিচার্জ করতে চান সেটা নিয়ে ব্যাংকের কার্ড ডিভিশনে চলে যান। প্রথমেই পাসপোর্টে ডলার এনডোর্স করিয়ে নিন। বাংলাদেশ সরকারের নিয়ম অনুযায়ী সার্কভুক্ত দেশে সর্বোচ্চ ৫০০০ USD এবং নন সার্ক দেশগুলোতে সর্বোচ্চ ৭০০০ USD এনডোর্স করতে পারবেন। কম করলেও সমস্যা নেই পরে বাড়ানো যাবে।

এবার আসা যাক ডলার রিচার্জ কিভাবে করবেন। এটা খুব কঠিন কিছু না। আপনি জমা স্লিপে প্রথমে আপনার নাম লিখবেন একাউন্ট নাম্বারের যায়গাটি খালি রাখবেন। কার্ড নাম্বারের যায়গায় আপনি কার্ডের পুরো নাম্বারটি লিখবেন।কারেন্সির যায়গায় USD এবং BDT ২টা অপশন থাকবে। আপনি USD সিলেক্ট / টিক মার্ক দিবেন।

এবার জমা দেয়ার পালা, জমা দেয়ার সময় ক্যাশ কাউন্টারে যিনি থাকবেন তিনি আপনাকে কনফার্ম করবেন যে আপনি ডলার পার্টে টাকা জমা দিচ্ছেন। একটা ব্যাপার খেয়াল রাখতে হবে যে ডলার রেট একেকদিন একেক রকম থাকে। তাই কতটাকা জমা দিলে কত ডলার পাবেন এটা নিশ্চিত না।

আপনি কাউন্টারে থাকা অফিসারের কাছে ওইদিনের ডলার রেট সম্পর্কে জেনে নিতে পারেন। তবে ডলার রেট খুব বেশি ওঠানামা করে না। ৮৬ টাকা এর আশেপাশেই রেট থাকে।

এবার ব্যাংকের সব কাজ শেষ। পাসপোর্টে ডলার এনডোর্স হতে ২/১ দিন সময় লাগতে পারে। তবে ট্রানজেকশন শুরু করার আগে অবশ্যই একবার কাস্টমার কেয়ারে ফোন দিয়ে আপনার একাউন্টের ফরেন পার্ট ওপেন করে নিবেন। এটা হয়ে গেলে আপনি ট্রানজেকেশন শুরু করতে পারবে।

আরোও একটি বিষয় মনে রাখতে হবে। আপনার পার্সপোর্ট এর মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে আপনি এই কার্ড দিয়ে কোন লেনদেন করতে পারবেন না। তাই একাউন্ট খোলার আগে পার্সপোর্ট এর মেয়াদ ভাল করে দেখে নিন।

বাংলা ক্যালেন্ডার