Breaking News :

কোভিড হাসপাতালে করোনা নিয়ে কর্তব্যরত অবস্থায় ছিলেন তিনি

জাতীয়ঃ বাংলাদেশের নোয়াখালী জেলায় করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য শহীদ ভুলু স্টেডিয়ামে গত বৃহস্পতিবার থেকে চালু হয়েছে কোভিড-১৯ হাসপাতাল। হাসাপাতাল চালু হওয়ার দিন থেকেই ঐ হাসপাতালে রোগীর সেবা যারা দিচ্ছেন তাদের করোনা টেস্টের জন্য নমুনা সংগ্রহ করে বিআইটিআইডি।

গতকাল শনিবার (২রা মে) রাতে চট্টগ্রামের বিআইটিআইডি থেকে পাঠানো নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে দেখা যায় উক্ত হাসপাতাল চালু হওয়ার সময় থেকে কর্মরত একজন ওয়ার্ড বয়ের (২৪) শরীরে করোনা পজিটিভ পাওয়া যায়। খবর নিয়ে জানা যায় করোনা আক্রান্ত হওয়া এই ওয়ার্ড বয়ের আগের কর্মস্থল ছিল নোয়াখালী জেলার হাতিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে।

নোয়াখালী জেলায় কোভিড-১৯ হাসপাতাল চালু হওয়ার পর তাকে শহীদ ভুলু স্টেডিয়ামের সেই হাসপাতালে পাঠানো হয়েছিল। ঠিক একই দিন হাতিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত একজন আয়া (২৩) এবং সদর উপজেলার অপরিচিত এক যুবকের (২৫) করোনা শনাক্ত হয়েছে। গত ২৬ এপ্রিল তাঁদের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছিল। এ নিয়ে নোয়াখালী জেলায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১৪ জনে।

উক্ত ঘটনায় নোয়াখালীর শহীদ ভুলু স্টেডিয়ামের কোভিড-১৯ হাসপাতালের দায়িত্বে থাকা চিকিৎসক, নার্স, উপসহকারী চিকিৎসা কর্মকর্তা ও ওয়ার্ড বয়সহ ২৪ জনকে কোয়ারেন্টিনে পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

হাতিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্র জানায়, আক্রান্ত ওয়ার্ড বয়ের গ্রামের বাড়ি কবিরহাট উপজেলার ধানসিড়ি ইউনিয়নে। আয়ার বাড়ি হাতিয়া পৌর এলাকায়। তাঁরা দুজনই চাকরিতে যোগ দিয়েছেন গত ২৯ মার্চ। যোগ দিয়েই ওয়ার্ড বয় ছুটিতে চলে যান। পরে ৫ এপ্রিল কর্মস্থলে যোগ দেন। ২৯ এপ্রিল তাঁকে কোভিড-১৯ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ৩০ এপ্রিল থেকে তিনি সেখানে দায়িত্ব পালন করছেন। তবে তাঁর এবং আয়ার শরীরে এখন পর্যন্ত করোনার কোনো উপসর্গ নেই।

কোভিড ১৯ হাসপাতালের সমন্বয়ক নিরুপন দাস বলেন, আগামীকাল সোমবারের মধ্যে এই হাসপাতালে কর্মরত ২৪ জনের সবাইকে কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হবে। সবার করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে।

হাতিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. নিজাম উদ্দিন গতকাল শনিবার রাতে বলেন, তাঁরা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রায় সব কর্মীর নমুনা সংগ্রহ করে করোনা পরীক্ষার জন্য পাঠিয়েছিলেন। এর মধ্যে ওই ওয়ার্ড বয় ও আয়ার নমুনাও পাঠানো হয়। তবে তাঁদের কারও শরীরেই করোনার কোনো উপসর্গ ছিল না।

তিনি বলেন, ইতিমধ্যে বেশ কয়েকজনের নমুনা পরীক্ষায় ফলাফল নেগেটিভ আসে। বাকিদের পরীক্ষার প্রতিবেদন আসতে সময় লাগে। ইতিমধ্যে সিভিল সার্জনের কার্যালয় থেকে এক ওয়ার্ড বয়সহ তিনজনকে জেলা সদরে কোভিড-১৯ হাসপাতালে দায়িত্ব পালনের জন্য ডাকা হয়। সে অনুযায়ী তাঁদের সেখানে পাঠানো হয়েছে। যাঁদের মধ্যে একজনের (ওয়ার্ড বয়) শরীরে করোনার সংক্রমণ পাওয়া গেছে।

সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. মাহবুবুর রহমান বলেন, সদর উপজেলার নোয়ান্নই ইউনিয়নে যে ব্যক্তির (২৫) করোনার সংক্রমণ পাওয়া গেছে, তিনি নারায়ণগঞ্জ থেকে এসেছিলেন। ওই তথ্যের ভিত্তিতে তাঁরা ২৬ এপ্রিল নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠিয়েছিলেন এবং ওই ব্যক্তিকে ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলেছেন। এখন তাঁর বাড়ি লকডাউন করা হবে এবং পরিবারের অন্য সদস্যদের নমুনা সংগ্রহ করা হবে।

করোনা সংক্রমণের নমুনা সংগ্রহের পর ফলাফল জানার আগেই সন্দেহভাজন স্বাস্থ্যকর্মীকে কোভিড-১৯ হাসপাতালে সেবার দায়িত্ব দেওয়ার বিষয়ে জেলার সিভিল সার্জন মোমিনুর রহমান দাবি করেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা তাঁকে এ বিষয়ে কিছু জানাননি। তা ছাড়া ওই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ঠিক কতজন কর্মীর নমুনা পাঠানো হয়েছিল, সেটিও তাঁকে সুনির্দিষ্টভাবে জানানো হয়নি।

সিভিল সার্জন বলেন, কোভিড-১৯ হাসপাতালে নতুন লোকবল নিয়োগ দেওয়া হবে। এ ছাড়া হাতিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সম্পূর্ণভাবে লকডাউন করা হবে।

হাতিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্র জানায়, হাসপাতালের দায়িত্বে আসবেন চিকিৎসকসহ নতুন একদল স্বাস্থ্যকর্মী।

বাংলা ক্যালেন্ডার