Breaking News :

কক্সবাজার রামুতে কটেজে অস্ট্রেলিয়ান নারী ধর্ষণ চেষ্টা

মঙ্গলবার (১৭ ডিসেম্বর) দুপুরে কক্সবাজার জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেন এর থেকে জানা যায়, কক্সবাজারে মেরিন ড্রাইভ সড়ক সংলগ্ন একটি কটেজে নিরাপত্তাকর্মীর সহযোগিতায় অস্ট্রেলিয়ান নারী পর্যটককে ধর্ষণচেষ্টা করা হয়। এই ঘটনায় দুই জনকে আটক করেছে পুলিশ। মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

স্থানীয়ভাবে খবর নিয়ে জানা যায়, কক্সবাজারের রামুর পেঁচারদ্বীপ এলাকায় মারমহেড বিচ রিসোর্টের পাশে অবস্থিত ‘গুড ভাইব কটেজ’ অবস্থিত। এই কটেজে একজন অস্ট্রেলিয়ান নারী পর্যটক উঠেন। রবিবার রাতে (১৫ই ডিসেম্বর ২০১৯) ঐ নারীকে ধর্ষনের চেষ্টা করে দুইজন যুবক। কিন্তু তিনি সাথে সাথে ৯৯৯ এ কল করে সাহায্য চাইলে তাৎক্ষণিক সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসে স্থানীয় পুলিশ। পুলিশ উক্ত স্থান থেকে গ্রেপ্তার করে দুইজনকে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- রামু উপজেলার পেঁচারদ্বীপ এলাকার  আবদুল মুনাফের ছেলে আব্দুল গফুর (২০) ও কলিম উল্লাহর ছেলে আনছার উল্লাহ (২৪)। ঘটনার সঙ্গে জড়িত বেলাল উদ্দিন (২৫) পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেন জানান, গত ৮ ডিসেম্বর অস্ট্রেলিয়ান ওই নারী পর্যটক অন অ্যারাইভাল ভিসায় বাংলাদেশে ঘুরতে আসেন। গত রবিবার (১৫ ডিসেম্বর ২০১৯) ঐ নারী কক্সবাজারের মেরিন ড্রাইভ সংলগ্ন গুড ভাইব কটেজে ওঠেন। শনিবার অনলাইনের মাধ্যমে কটেজটি বুকিং দিয়েছিলেন তিনি এবং রবিবার কটেজে উঠেন তিনি। ঐ দিন রাত সাড়ে ১২টা থেকে ১টার দিকে হটাৎ তার কক্ষে জোড়পূর্বক  দুজন যুবক প্রবেশ করে। ঢুকেই তার জিনিসপত্র ডাকাতি করে, ডাকাতি শেষে মুখ চেপে ধরে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। তৎক্ষনাত ঐ নারী নিজের আত্নরক্ষা করে ফোনে ৯৯৯ এ কল দিয়ে ঘটনা জানাতে সক্ষম হন। পরে তিনি নিজে গিয়ে কটেজের মালিককে ঘটনাটি জানান।

ঘটনাটি অবহিত হয়ে রামু থানার পুলিশ দ্রুত গিয়ে তাকে উদ্ধার করে কক্সবাজারে নিয়ে আসেন এবং প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

কটেজ থেকে মালিক শামীমের এক ভাই ও কটেজের নিরাপত্তাকর্মীকে আটক করে পুলিশ। প্রাথমিক জিজ্ঞাসায় পুলিশকে নিরাপত্তাকমী জানায়, সে নিজেই গফুর ও বেলাল নামে দুই যুবককে খবর দেয়। তারা মূলত সেখানে চুরির জন্য প্রবেশ করেছিল। কিন্তু পরবর্তিতে ঐ নারীর মুখ চেপে ধরে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। রাতেই পুলিশ গফুরকে আটক করে। তবে এখনও পলাতক রয়েছে বেলাল।

পুলিশর ঐ কর্মকর্তা বলেন, একটি কটেজে এভাবে চুরি বা ডাকাতির উদ্দেশ্যে বহিরাগত যবক প্রবেশ করা এবং সেই সাথে ধর্ষন চেষ্টা এটি কোনভাবেই মেনে নেওয়ার মতো নয়। একটি কটেজে নিরাপত্তা না দিতে পারলে ঐ কটেজ থাকার কোন দরকার নাই। দ্রুত প্রশাসনিকভাবে তাদের সকলের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। একজন ভিন দেশী পর্যটকের কাছে এই অভিজ্ঞতা আমাদের দেশের পর্যটক শিল্পে প্রভাব ফেলবে। তাই ভুই ফোর কটেজগুলোকে চিহ্নিত করতে হবে এবং পর্যটন শিল্পকেই এই ব্যবস্থা গ্রহন করতে হবে।

তিনি আরও জানান,  অস্ট্রেলিয়ান ঐ তরুণী হাইকমিশনের সঙ্গে যোগাযোগ করে মামলা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। পুলিশ হাইকমিশনের সঙ্গে কথা বলেছে। রামু থানায় বর্তমানে মামলাটি প্রক্রিয়াধীন আছে।

পুলিশ সুপার আরোও জানান, আগামী ২৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ান ওই পর্যটকের ভিসার মেয়াদ রয়েছে। তবে তিনি আজই ঢাকায় ফিরে আসবেন বলেও তিনি জানান। যেহেতু ঘটনাটি পর্যটন সংশ্লিষ্ট তাই বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করা হচ্ছে।

বাংলা ক্যালেন্ডার