Breaking News :

ব্রেন স্ট্রোক করা গুরুতর অসুস্থ ভিক্ষুককে ধর্ষণ

যে বয়সে আল্লাহকে বেশি বেশি ডাকার সময় এবং প্রতিনিয়ত মৃত্যকে স্বরণ করার কথা। সেই সময়ে একজন অসুস্থ্য অসহায় মহিলাকে দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে ধর্ষনের মতো নেক্কার জনক ঘটনা আসলেই একটি হৃদয় বিদারক এবং নিকৃষ্টতা ও সমাজের অসহাত্বের দিকটিই বর্তমানে ফুটে উঠছে। সামাজিক অবক্ষয় এবং বিচারহীনতাও এর জন্য বিশেষ দায়ি। ঘটনাটি ঘটেছে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলায়।

কাঁচপুরের এক দিনমজুরের স্ত্রী দুই সন্তানের জননী ৪-৫ মাস আগে ব্রেন স্ট্রোক করে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। উন্নত চিকিৎসা করানোর সামর্থ্য না থাকায় ভিক্ষা করে চিকিৎসা খরচ চালিয়ে আসছিলেন ওই নারী। প্রতিদিনের মতো সোমবার সকালে ভিক্ষা করতে বের হন ঐ নারী। ভিক্ষারত অবস্থায় তাকে সাহায্য দেয়ার জন্য ডেকে নিয়ে যায় হান্নানুর রহমান রতন। তিনি রতনের সাথে সাহায্যের আশায় যান। রতন সাহায্যের কথা বলে উপজেলার কাঁচপুর ইউনিয়নের একটি কারখানার পাশে রতনের অফিসের তিনতলার কক্ষে ওই নারীকে নিয়ে যান এবং জোড় পূর্বক  তাকে ধর্ষণ করা হয়।  ধর্ষণ শেষে ঐ নারীকে তার অফিস থেকে চলে যেতে বলে। অন্যথায় মহিলাটিকে চুরির অপবাদ দিবে বলে হুমকি দেয়। অসুস্থ অবস্থায় কাঁচপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোশারফ ওমরের কাছে গিয়ে বিষয়টি জানান ঐ নারী। পরে চেয়ারম্যান বিষয়টি পুলিশকে জানান।

ঘটনার পরপরই ধর্ষণে অভিযুক্ত হান্নানুর রহমান রতন (৫৭) পালিয়ে যান। এ ঘটনায় সোনারগাঁ থানায় মামলা করেছেন ধর্ষণের শিকার নারী ভিক্ষুক।  ঐ নারীর বরাত দিয়ে সোনারগাঁ থানা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) সৈয়দ আজিজুল হক বলেন, কাঁচপুরের এক দিনমজুরের স্ত্রী দুই সন্তানের জননী ৪-৫ মাস আগে ব্রেন স্ট্রোক করে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। উন্নত চিকিৎসা করানোর সামর্থ্য না থাকায় ভিক্ষা করে চিকিৎসা খরচ চালিয়ে আসছিলেন ওই নারী।

এসআই সৈয়দ আজিজুল হক আরও বলেন, প্রাথমিকভাবে ওই নারীকে ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে। ঘটনার পর থেকে ধর্ষক রতন এলাকা ছেড়ে পালিয়ে গেছেন। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

এদিকে ঐ নারীর সাথে কথা হলে তিনি জানান, তাকে রতন জোড়পূর্বক ধর্ষণের পর ঐ স্থান থেকে দ্রুত চলে যেতে বলেন। অন্যথায়, চুরির অপবাদ দিয়ে পুলিশের কাছে ধরিয়ে দেওয়ার হুমকি দেয়। কিন্তু তিনি হুমকিতে না ভয় পেয়ে ঘটনাটি চেয়ারম্যানকে জানান। তিনি আরোও বলেন, ধর্ষণ করার সময় আশে পাশে আরোও মানুষ ছিল কিন্তু তারা কেউই তার সাহায্যে এগিয়ে আসেন নি।

বাংলা ক্যালেন্ডার