Breaking News :

ভারতে পেঁয়াজের ধস, কেজি প্রতি ৬ রুপি

পেঁয়াজের ধসে এখন ভারত। গতকাল সর্বকালের সবচেয়ে কম দামে বিক্রি হয়েছে এই মহামূল্যবান পেঁয়াজ। লাসাগাঁও অনলাইন মার্কেটে খবর নিয়ে জানা যায় কেজিপ্রতি পণ্যটি ৬ থেকে ১০ রুপি দরে বিক্রি হয়েছে। এরই মধ্যে ন্যায্য মূল্য না পাওয়ায় দেশটির কৃষকরা এখন রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা তুলে দিতে কেন্দ্রকে চাপ দিচ্ছেন। ভারত সরকার এরই মধ্যে কৃষকের চাপে কর্ণাটকে উৎপাদিত পেঁয়াজের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে । প্রতি চালানে সর্বোচ্চ ৯ হাজার মেট্রিক টন রপ্তানি করা যাবে বেঙ্গালুরু পেঁয়াজ। চেন্নাই সমুদ্রবন্দর দিয়ে এ পেঁয়াজ রপ্তানি করা যাবে এবং এ জন্য হর্টিকালচার কমিশনারের অনুমতি নেওয়া লাগবে ।

হটাৎ করে পেঁয়াজ এর দাম কমার কারন হিসেবে বলা হয়েছে কর্ণাটকের গোলাপি জাতের বেঙ্গালুরু পেঁয়াজে বাজারে চলে আসায় স্থানীয়ভাবে পণ্যটির দাম কমতে শুরু করেছে। রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার জন্য ব্যবসায়ীরা তাদের রাজ্য সরকারকে চাপ দিচ্ছেন। এদিকে মহারাষ্ট্রে নির্বাচনও শেষ হয়ে গেছে। ভারতীয় ব্যবসায়ীরা মনে করেন এ মুহূর্তে পেঁয়াজ রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা রাখার আর কোনো যৌক্তিক কারণ দেখছেন না তারা । গত ২৮ অক্টোবর ভারতের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বৈদেশিক বাণিজ্য শাখা এক আদেশে শুধু কর্ণাটক রাজ্যে উৎপাদিত ‘বেঙ্গালুরু গোলাপি পেঁয়াজে’ রপ্তানির অনুমতি দেয়। এর আগে ২৯ সেপ্টেম্বর এক আদেশে পেঁয়াজ রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দেয় ভারত। এর ফলে বাংলাদেশে পেঁয়াজের দাম এক লাফে ১২০-১৫০ টাকা হয়ে যায়।

গতকাল পাইকারি বাজারে পণ্যটির দাম কেজিপ্রতি ১১৫ থেকে ১২০ টাকা এবং খুচরা বাজারে ১৩০ থেকে ১৫০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা জানান, ভারতের রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার ঘোষণায় পেঁয়াজের দাম দু-চার দিনের মধ্যে কমে আসবে বলে তারা আশা করেন ।

চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জের পাইকারীর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, ‘আমরা শুনেছি ভারতের কর্ণাটকে পেঁয়াজের রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া অন্যান্য রাজ্যের পেঁয়াজেও দ্রুত এলসি খোলা যাবে। এ ব্যাপারে ভারতের রপ্তানিকার আমাদেরকে জানিয়েছেন। আমরা আশা করি আগামী ২ নভেম্বরের মধ্যে নতুন এলসি শুরু হবে। আমদানি করা মাল সীমান্ত দিয়ে আসতে শুরু করলেই দ্রুত বাজারে দাম কমে যাবে।’

যেহেতু আমদানিকৃত পেঁয়াজ আসছে না সেহেতু গত তিন-চার দিনে পণ্যটির দাম বেড়েছে বলে জানান এই ব্যবসায়ী। খাতুনগঞ্জের অন্যান্য ব্যবসায়ীদের সাথে কথা হলে তারা জনান, ভারতের কর্ণাটকের পাশাপাশি অন্যান্য রাজ্যের কৃষক ও ব্যবসায়ীরাও পেঁয়াজ রপ্তানির নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে কেন্দ্রকে চাপ দিচ্ছেন। তারা শুধু একটি রাজ্য থেকে পেঁয়াজ রপ্তানির এই আদেশে ক্ষুব্ধ। বিশেষ করে এশিয়ার পেঁয়াজের সবচেয়ে বড় বাজার লাসাগাঁওয়ের চাষিরা পেঁয়াজ রপ্তানির নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার জন্য কেন্দ্রের কাছে আবেদন করেছেন।

বাংলা ক্যালেন্ডার