Breaking News :

একটি রিভলভার ও ৩ রাউন্ড গুলি সহ কাউন্সিলর তারেকুজ্জামান রাজীব গ্রেপ্তার

রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার একটি বাড়ি থেকে যুবলীগ নেতা ও মোহাম্মদপুরের ওয়ার্ড কাউন্সিলর তারেকুজ্জামান রাজীবকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। চলমান ক্যাসিনো বিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে এ অভিযান চালানো হয়। অভিযানে তার কাছ থেকে নগদ ৩৩ হাজার টাকা, সাত বোতল বিদেশী মদ, একটি রিভলভার ও ৩ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।

তারেকুজ্জামান রাজীব ঢাকা উত্তর সিটির ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর। রাজীবকে ধরতে ১৯ই অক্টোবর রাত সাড়ে নয়টা থেকে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার একটি বাড়ি ঘিরে রাখে র‌্যাব। রাত সাড়ে দশটার দিকে ভবনটির একটি ফ্ল্যাট থেকে তারেকুজ্জামান রাজীবকে গ্রেপ্তার করা হয়।

লেফটেন্যান্ট কর্নেল সারওয়ার বিন কাশেম (র‌্যাবের মিডিয়া উইং এর পরিচালক র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক) জানান, ‘চাঁদাবাজি সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড সহ বিভিন্ন অভিযোগে রাজীবকে খোঁজা হচ্ছিলো। অভিযানে, নগদ ৩৩ হাজার টাকা, সাত বোতল বিদেশী মদ, তার পাসপোর্ট, একটি রিভলভার ও ৩ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধারকৃত অস্ত্রটি অবৈধ। র‌্যাব জানিয়েছে, তারেকুজ্জামান রাজীবকে নিয়ে তার বাসায় ও অফিসে অভিযান চলবে।’

জানা গেছে, বাড়িটি তার এক বন্ধুর। তার নাম মিশু হাসান। পেশায় তিনি একজন ব্যবসায়ী। গত ১৩ই অক্টোবর থেকে এ বাসায় আত্মগোপনে ছিলেন তারেকুজ্জামান রাজীব। তারেকুজ্জামান রাজীবের বিরুদ্ধে ক্যাসিনো, চাঁদাবাজি, জমি দখলসহ নানা অভিযোগ রয়েছে। তার নামে রাজধানীর বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালে কাউন্সিলর হওয়ার পরই যুবলীগ নেতা তারেকুজ্জামান রাজীবের অবস্থা বদলে যেতে থাকে। এই কয়েক বছরে তিনি শতকোটি টাকার মালিক হয়েছেন। জমি দখল, চাঁদাবাজিসহ নানা অপকর্মের অভিযোগ পাওয়া গেছে তার বিরুদ্ধে। মোহাম্মদপুর বাসস্ট্যান্ডের সামনে আল্লাহ করিম মসজিদ ও মার্কেটের নিয়ন্ত্রণও রাজীবের হাতে।কাউন্সিলর হওয়ার পর মসজিদ ও মার্কেট পরিচালনা কমিটির সভাপতি করেন তার স্ত্রীর বড় ভাই ইকরাম হোসেনকে। মোহাম্মদপুর, বেড়িবাঁধ, বসিলা এলাকার পরিবহনে চাঁদাবাজি রাজীবের নিয়ন্ত্রণে। অটোরিকশা, লেগুনা, ব্যাটারিচালিত রিকশা ও বাস থেকে প্রতিদিন কয়েক লাখ টাকা চাঁদা তোলে তার লোকজন। পাঁচ বছর ধরে এলাকার কোরবানির পশুর হাটের ইজারাও নিয়ন্ত্রণ করে আসছেন রাজীব।

বাংলা ক্যালেন্ডার