Breaking News :

অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে গনধর্ষন

গত ৪ অক্টোবর (শুক্রবার) গাজীপুরে অন্তঃসত্ত্বা একজন নারী তার  বাড়ির পাশে একটি পানির পাম্প চালু করতে গেলে অভিযুক্তরা তাকে মারধর করে আহত করে। এরপর তাকে একটি কক্ষে ধরে নিয়ে যায়। সেখানে তারা তার মাথায় আঘাত করলে ভুক্তভোগী নারী মাটিতে পড়ে যান। পরে তাকে ধর্ষণ করা হয়। এক পর্যায়ে তিনি জ্ঞান হারালে তাকে ফেলে অভিযুক্তরা ঘটনাস্থল থেকে চলে যায়।

ভুক্তভোগী এই নারী আরোও জানান, গত ২০১০ সালে তিনি অভিযুক্ত তোফাজ্জলের বাসা সংলগ্ন মার্কেটে দোকান ঘর ভাড়া নিয়ে কাপর সেলাইয়ের জন্য টেইলরিং হাউজ গড়ে তুলেন। এই টেইলারিং এর আয় দিয়ে জায়গা কিনে একটি বাড়ি তৈরি করেন একই এলাকায়। এক বছর আগে তার বিয়ে হয় কারখানার এক শ্রমিকের সঙ্গে। এর পর তিনি অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন। কিন্তু গত ৪ অক্টোবর তার জীবনে নেমে আসে এই ভয়ানক অন্ধকার।

নির্যাতিত এই গৃহবধূ চারজনকে অভিযুক্ত করে এ বিষয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযুক্তরা হলেন- শ্রীপুর পৌর এলাকার বহেরারচালা গ্রামের একই গ্রামের হিরন মাঝির ছেলে নাজমুল মাঝি, নুর মোহাম্মদের ছেলে তোফাজ্জল হোসেন,  মামুন নামের এক যুবক ও বিল্লাল মাঝির ছেলে কায়েশ মাঝি। অভিযুক্তরা সবাই ক্ষমতাসীন দলের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। তবে অভিযোগটি মিথ্যা বলে দাবি পুলিশের।

ভুক্তভোগী ওই নারী আরোও জানান, বর্তমানে তিনি আট মাসের অন্তঃসত্ত্বা। সম্প্রতি তোফাজ্জলের কাছে দোকান ঘরের জামানতের টাকা ও তার বাড়ির জায়গা নিয়ে অভিযুক্তরা এই জমির মালিকানা দাবি করলে বিরোধ তৈরি হয়। পরে এ নিয়ে আদালতে তিনি মামলা দায়ের করেন। গত কয়েকমাস ধরে এ মামলা তুলে নেওয়ার চাপ দিতে থাকে বিবাদীরা। এক পর্যায়ে তার একমাত্র সম্বল বাড়িটিও দখল করে নেয় তারা।

ভুক্তভোগী ওই নারী জানান, সর্বশেষ তাকে এলাকা থেকে তাড়িয়ে দেওয়ার উদ্দেশ্যে তাকে যৌন হয়রানি করেন অভিযুক্তরা। এসময় যৌন হয়রানির ভিডিওচিত্র ধারণ করা আছে এমন হুমকি দিয়ে ঘটনা প্রকাশ করলে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখানো হয়। পরে তিনি থানায় অভিযোগ দায়ের করলে অভিযুক্তরা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন।

এদিকে আজ শনিবার ১২ই অক্টোবর পুলিশ তদন্তের জন্য ঘটনাস্থলে যান। পরে পুলিশ চলে যাওয়ার পর অভিযুক্তরা এই নারীর থাকার ঘরের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন। নারীকে যৌন হয়রানির বিষয়ে অভিযুক্ত তোফাজ্জল হোসেনের দাবি, তাদের হয়রানির উদ্দেশ্যেই এই নারী মূলত অভিযোগ দায়ের করেছে। ধর্ষণের সঙ্গে তিনি জড়িত নন। এ বিষয়ে শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লিয়াকত আলী জানান, পুলিশ বিষয়টি অনুসন্ধান করেছে। এই নারীর দায়েরকৃত অভিযোগটি একটি মিথ্যা ঘটনা মাত্র।

তবে, স্থানীয় কিছু মানুষ নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, এমন ঘটনা তারা শুনেছেন এবং ঘটনাটি সত্য। তবে, পুলিশ নিরেপক্ষ ভুমিকায় অবর্তীন না হলে এর সুষ্ঠ কোন বিচার হওয়ার সম্ভাবনা নেই।

বাংলা ক্যালেন্ডার